সোমবার ১৬ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম
শিরোনাম

পৃথিবীর প্রায় ২২০ কোটি লোক নিরাপদ পানীয়জলের অভাবে রয়েছে-সবুজ আন্দোলন

তসলিম হাসান হৃদয়, চট্টগ্রাম   |   মঙ্গলবার, ২২ মার্চ ২০২২

পৃথিবীর প্রায় ২২০ কোটি লোক নিরাপদ পানীয়জলের অভাবে রয়েছে-সবুজ আন্দোলন

আন্তর্জাতিক নিরাপদ পানি দিবস উপলক্ষে “বিশুদ্ধ পানির সংস্থান—আনবে নিরাপদ জীবন” শীর্ষক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। মঙ্গলবার চট্টগ্রাম মেরন সান স্কুল এন্ড কলেজে শীর্ষক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন সবুজ আন্দোলন কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী পরিষদের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কাজী হুমায়ুন কবির।

অনুষ্ঠানের প্রধান আলোচক ছিলেন অধ্যক্ষ ড. মোহাম্মদ সানাউল্লাহ, সহ- শিক্ষা ও গবেষণা সম্পাদক , সভাপতি, সবুজ আন্দোলন চট্টগ্রাম মহানগর শাখা। সভাপ্রধান ছিলেন ইঞ্জিনিয়ার রফিকুল ইসলাম, সহ- বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক, সবুজ আন্দোলন কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী পরিষদ।

এছাড়াও উপস্তিত ছিলেন সবুজ আন্দোলনের সাংগঠনিক সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন, সাইফুল ইসলাম সাহেব, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক রক্সি জাহান, সাংবাদিক আসরাফ, সবুজ আন্দোলনের সদস্য ও মেরন সান স্কুল এন্ড কলেজের ছাত্রছাত্রীবৃন্দ অনুষ্ঠানের সঞ্চালনায় ছিলেন সবুজ আন্দোলন যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক তসলিম হাসান হৃদয়।

webnewsdesign.com

প্রধান আলোচকের বক্তব্যে সবুজ আন্দোলন চট্টগ্রাম মহানগর কমিটি সভাপতি অধ্যক্ষ ড. মোহাম্মদ সানাউল্লাহ বলেন, আজ ২২ মার্চ ২০২২ ইং আন্তর্জাতিক নিরাপদ পানি দিবস। প্রতিবছর এই দিনে সারা পৃথিবীতে পানির ব্যবহার ও দূষণ থেকে মুক্ত রাখতে নিরাপদ পানি দিবস পালন করা হয়।

সর্বপ্রথম ব্রাজিলে ১৯৯০ সালে ২২ মার্চ নিরাপদ পানি দিবস পালন করা হয়। তবে ১৯৯৩ সাল থেকে পর্যায়ক্রমে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে নিরাপদ পানি দিবস পালন করা হচ্ছে। এশিয়া অঞ্চলে সবথেকে নিরাপদ পানি ঝুঁকিতে বাংলাদেশ। জলবায়ু পরিবর্তন ও পরিবেশ বিপর্যয়ের ফলে ভূ—গর্ভস্থ পানি কমে যাওয়া এবং লবণাক্ত পানির পরিমাণ বৃদ্ধি পেয়েছে।
প্রধান অতিথি কাজি হুমায়ুন কবির সাহেব বলেন , উপকূলীয় অঞ্চলের শতকরা ৮০ শতাংশ জনগণ পুকুরের পানির উপর নির্ভরশীল। সাম্প্রতিক সময়ে প্রাকৃতিক দুর্যোগ বৃদ্ধি পায় সমুদ্রের লবণাক্ত পানি ফসলি জমি, পুকুর ও নদীতে ঢুকে পড়ায় লবণাক্ত পানির পরিমাণ আশঙ্কাজনক হারে বেড়েছে।

১৯৮০ সাল থেকে ২০২০ সাল পর্যন্ত দেশে প্রতিবছর গড়ে ৩০ শতাংশ লবণাক্ত পানির পরিমাণ বৃদ্ধি পেয়েছে। যার ফলে ২০৫০ সালে সারা বাংলাদেশে খাবার পানি ও সেচের পানির জন্য মোট জনসংখ্যার ১০ ভাগ সংকটে পড়বে।
জরিপ করে দেখা যায় সারা বাংলাদেশে বর্তমানে সুপেয় পানি সংকটে ভুগছে প্রায় ৭৩ শতাংশ জনগণ। সিটি কর্পোরেশন এলাকায় বিশুদ্ধ পানি সরবরাহের জন্য প্রতি লিটারে ৪ টাকা এবং উপকূলীয় অঞ্চলে ১ টাকার অধিক গুনতে হচ্ছে সাধারণ জনগণকে।

পাশাপাশি উত্তরাঞ্চলে ভূগর্ভস্থ পানি নিচে নেমে যাওয়ায় গভীর নলকূপ খনন করতে ১ হাজার থেকে ২ হাজার মিটার গভীরে যেতে হচ্ছে। শুষ্ক মৌসুমে সেচ কাজের জন্য পানি সংকট চরম আকার ধারণ করে।

সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার রফিকুল ইসলাম মামুন বলেন, সারা পৃথিবীতে উন্নত রাষ্ট্র অতিরিক্ত কার্বন নিঃসরণ ও মিথেন গ্যাসের ব্যবহার বৃদ্ধি করেছে যার ফলে ঘন ঘন প্রাকৃতিক দুর্যোগ বৃদ্ধি পেয়েছে। জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে সাগরের তলদেশে উচ্চতা বৃদ্ধি পেয়েছে। জোয়ারের সময় পানির তীব্রতা, উচ্চতা বৃদ্ধি, ভূগর্ভস্থ জলে আর্সেনিক দূষণ, জলাবদ্ধতা, মাটির লবণাক্ততা বৃদ্ধি, জল ও মাটি দূষণ এবং নদী ভাঙ্গন বৃদ্ধি পাচ্ছে। পাশাপাশি পানি দূষণ জনিত জটিল ও কঠিন রোগে আক্রান্ত হচ্ছে জনগণ। বিশেষ করে চর্ম রোগের সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে।

উপকূলীয় অঞ্চলে ২১ জেলায় স্বাদুপানির এলাকা ৫০ ভাগ থেকে কমে ৩৪ ভাগ হয়েছে। মৃদু লবণাক্ত এলাকা ৫২ ভাগ থেকে কমে ৪৬ ভাগ হয়েছে। যা আগামীতে প্রচন্ড লবণাক্ত এলাকা ৪ ভাগ থেকে বেড়ে ২০ ভাগে রূপান্তরিত হবে। বর্তমানে ৩০ বছরে ১০ ভাগ এলাকা ও ১০ ভাগ তীব্রতা বৃদ্ধি পেয়েছে।
ভূগর্ভস্থ পানি ব্যবহারের ক্ষেত্রে প্রচলিত আইনের সংশোধন এবং বাস্তবায়ন করতে হবে। এ বিষয়ে সরকারের পক্ষ থেকে জনসচেতনতার জন্য প্রচার—প্রচারণার ব্যবস্থা করতে হবে।

Facebook Comments Box
advertisement

Posted ৫:০৩ অপরাহ্ণ | মঙ্গলবার, ২২ মার্চ ২০২২

দৈনিক প্রথম দৃষ্টি |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০৩১  
প্রকাশক
মাসুদ করিম সিদ্দিকী
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক
মিজানুর রহমান সিদ্দিকী রঞ্জু
সম্পাদক
এস কে দোয়েল
অফিস ব্যবস্থাপনা
নিসা আলী
সম্পাদকীয় কার্যালয়
৫/সি, আফতাবনগর মেইন রোড, রামপুরা, ঢাকা।
আঞ্চলিক প্রধান কার্যালয়
চৌরাস্তা বাজার, তেঁতুলিয়া, পঞ্চগড়
ফোন
+৮৮০১৭৫০-১৪০৯১৯
Email
prothomdristy@gmail.com